ট্রেন

উপকূল এক্সপ্রেস(Upakul Express)ট্রেনের সময়সূচী, টিকিটের মূল্য, ভাড়ার তালিকা ও বন্ধের দিন-2022

আজকাল আমরা উপকূলীয় সুস্পষ্ট শিক্ষার সময় সারণী, টিকিটের হার, ভাড়ার তালিকা, ঢাকা থেকে নোয়াখালীর শেষ দিন এবং নোয়াখালী থেকে ঢাকা কোর্সের বিষয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি।

আপনারা যারা ঢাকা থেকে নোয়াখালী এবং নোয়াখালী থেকে ঢাকা কোর্সে ভ্রমণ করছেন তাহলে এই লেখাটি আপনার জন্য। এখানে আপনি ঢাকা থেকে নোয়াখালী এবং নোয়াখালী থেকে ঢাকা অভিমুখে উপকুল স্পষ্ট ট্রেন চলার সমস্ত তথ্য পাবেন। যার জন্য আপনাকে আইটেমটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সুন্দরভাবে মেনে চলতে হবে।

উপকূল এক্সপ্রেস

আকাশতো স্পষ্ট (শিক্ষা নং 711−712) নোয়াখালী রেলওয়ে স্টেশন থেকে ঢাকা পর্যন্ত চলমান একটি আন্তঃনগর শিক্ষা। এটি সতেরো জানুয়ারী, 1986 সালে উদ্বোধন করা হয়েছিল।

এটা মাইল একটি আন্তঃনগর শিক্ষিত. শিক্ষার কোড হল 711/712। এটি ঢাকা থেকে নোয়াখালী এবং নোয়াখালী থেকে ঢাকা পর্যন্ত চলাচল করে। আপনি যদি নিরাপদ এবং সমস্যাহীন ট্যুর চান, তাহলে ট্রেন আপনার জন্য সন্তোষজনক মোড। কারণ এটা অনেক নিরাপদ, আরামদায়ক এবং ঝামেলা মুক্ত। আমি সবসময় আমার ভ্রমণে শিক্ষিত যাত্রার অভিজ্ঞতা নেওয়ার চেষ্টা করি। শিক্ষিত ভ্রমণ আমার প্রথম অগ্রাধিকার. আমরা উপকুলের স্পষ্ট শিক্ষার সময়সূচী, সাব-স্টেশন এবং টিকিটের মূল্য বর্ণনা করতে যাচ্ছি। তাই ছেড়ে দেওয়ার শুরু থেকে এই পাঠ্য অধ্যয়ন বজায় রাখুন।

উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী 

আপনি যেমন বুঝতে পারেন, উপকূলীয় নির্দিষ্ট ঢাকা থেকে নোয়াখালী এবং নোয়াখালী থেকে ঢাকা রুটে ভ্রমণ শেখায়। উপকুল নির্দিষ্ট ট্রেন সপ্তাহে ছয় দিন চলে এবং কোনো একদিন বন্ধ থাকে। বুধবার নোয়াখালী স্টেশন এবং মঙ্গলবার ঢাকা কমলাপুর রেলস্টেশন বন্ধ থাকে। এই শিক্ষা প্রতি বুধবার এবং মঙ্গলবার বন্ধ থাকে। আপনার অবকাশ স্থলে উপকূলীয় নির্দিষ্ট শিক্ষার সময়সূচী রয়েছে।

ঢাকা-নোয়াখালী-ঢাকা ট্রেনের সময়সূচী ও বন্ধের দিন

ট্রেন নং উৎস প্রস্থান গন্তব্য প্রবেশ সাপ্তাহিক  ছুটি
৭১১ নোয়াখালী ০৬:০০ ঢাকা কমলাপুর ১১:৪৫ বুধবার
৭১২ ঢাকা কমলাপুর ১৫:২০ নোয়াখালী ২১:২০ মঙ্গলবার

উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রা বিরতি

নোয়াখালী থেকে ঢাকা এবং ঢাকা থেকে নোয়াখালী রুটে চলার সময় এই এডুকেশনটি ১৩টি স্টেশনে থামে। নীচে উপকূলীয় নির্দিষ্ট প্রতিরোধ স্টেশনগুলির নাম রয়েছে।

-ঢাকা বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন

-নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশন

-আশুগঞ্জ

-ব্রাহ্মণবাড়িয়া

-আখাউড়া জংশন

-কসবা

-কুমিল্লা

-লাকসাম জংশন

-নাথেরপেটুয়া

-সোনাইমুড়ি

-বজরা

– চৌমুহনী

– মাইজদী কোর্ট

উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিটের মূল্য ও ভাড়ার তালিকা

উপকুল স্পষ্টভাবে প্রতিটি এসি এবং নন-এসি আসন অফার করে। ঢাকা থেকে নোয়াখালী যাত্রা উপকুল এক্সপ্রেস ২০৪ কিলোমিটার প্রস্তুত। ট্রেনের টিকিটের মূল্য অন্যান্য রুটের তুলনায় কম। আপনি একটি সংযত চার্জে একটি আরামদায়ক এবং নিরাপদ ভ্রমণে আনন্দ করতে পারেন। আমি সাধারণত সস্তা টিকিট চার্জ, আরামদায়ক এবং নিরাপদ যাত্রার কারণে শিক্ষণ ভ্রমণের সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকি। ট্রেনের মধ্যে বিশেষ আসনের বিভাগ থাকতে হবে। উপকুলের মূল্য টিকিটের হার সিট বিভাগের সাথে সামঞ্জস্য রেখে নীচে দেওয়া আছে।

আসন বিন্যাস

টিকিটের মূল্য

শোভন ২২৫/=
শোভন চেয়ার ২৭০/=
ফার্স্ট সিট ৩৬০/=
ফার্স্ট বার্থ ৫৪০/=
স্নিগ্ধা ৫১৮/=
এসি ৬২১/=
এসি বার্থ ৯৩২/=

অন্যান্য সুবিধা

আন্তঃনগর ট্রেনগুলো নামাযের জন্য নির্ধারিত জায়গা রয়েছে।

কতর্ব্যরত গার্ডের কাছে প্রাথমিক চিকিৎসা বক্স রয়েছে।

টয়লেট ব্যবস্থা রয়েছে। তবে ট্রেন থেমে থাকা অবস্থায় টয়লেট ব্যবহার না করা ভালো।

প্রত্যেক বগিতে একজন করে গাইড থাকেন। যাত্রীদের সেবা, প্রয়োজনীয় পরামর্শ ও ট্রেনের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তারা দায়িত্ব পালন করে থাকেন।

যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য রয়েছে জানালার পাশে এ্যালুমিনিয়ামের শাটার। ট্রেনে ভ্রমণকালে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়। যেমন – ট্রেনের দরজা-জানালায় না বসা, ট্রেনের ছাদে না ওঠা, ইঞ্জিনে না চড়া। ঘনবসতি বা বস্তি এলাকাতে ট্রেন চলার সময় জানালার শাটার লাগিয়ে দেয়া।

এসি কেবিন ছাড়া শোভন বগিতে স্ট্যান্ডিং টিকেট কাটার সুবিধা রয়েছে। মোট বরাদ্দকৃত টিকেট বিক্রি হয়ে যাওয়ার পর স্ট্যান্ডিং টিকেট দেয়া হয়। স্ট্যান্ডিং টিকিটের মূল্য সিটিং টিকেটের সমান এবং সাথে সাধারণ টিকেটের মতই পণ্য নেয়া যায়।

যাতায়াতের সময় নিজের মালামাল নিজ দায়িত্বে রাখবেন। এই নিবন্ধে আপনার কোন প্রশ্ন বা তথ্য থাকলে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

আরো পড়ুন,

ঢাকা টু উল্লাপাড়া ট্রেনের সময়সূচী,টিকিটের মূল্য,ভাড়া ও বিরতি স্টেশন

মেয়েদের ইমপ্রেস করার এসএমএস, উক্তি, স্ট্যাটাস ,কবিতা

Liton Roy

আমি লিটন রায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলা বিভাগ হতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করে 2018 সাল থেকে সমাজের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক,মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি অবলোকন করে- জীবনকে পরিপূর্ণ আঙ্গিকে নতুন করে সাজানোর আশাবাদী। নতুনের প্রতি মানুষের আকর্ষণ চিরস্থায়ী- তাই নবরুপ ওয়েবসাইটে নিয়মিত লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *